উত্তল দর্পণে প্রতিবিম্ব গঠন এবং বিম্বের অবস্থান, প্রকৃতি ও আকৃতি নির্ণয় কর ?

উত্তল দর্পণ সম্পর্কে বিস্তারিত না জানলে উত্তল দর্পণে প্রতিবিম্ব গঠন যে ভাবে হয় তা ভালোভাবে বুঝা সম্ভবনা। তাই প্রথমে উত্তল দর্পণ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করে মূল পাঠে যাব।

গোলীয় দর্পণ দু প্রকারের হয়। যথা-

(১) অবতল দর্পণ (Concave mirror) এবং

(২) উত্তল দর্পণ (Convex mirror)।

উত্তল দর্পণ: কোন ফাঁপা গোলকের বাইরের পৃষ্ঠের কিছু অংশ যদি মসৃণ হয় এবং তাতে আলোর নিয়মিত প্রতিফলন ঘটে অর্থাৎ গোলকের উত্তল পৃষ্ঠ যদি প্রতিফলকরূপে কাজ করে, তবে তাকে উত্তল দর্পণ বলে। কোন স্বচ্ছ ফাঁপা গোলক থেকে কেটে নেয়া অংশের অবতল দিকে, অর্থাৎ ভেতরের দিকে যদি পারা লাগান হয়, তাহলে উত্তল দর্পণ তৈরি হয়।

উত্তল দর্পণে বিম্বের অবস্থান, প্রকৃতি ও আকৃতি নির্ণয়

উত্তল দর্পণে প্রতিবিম্ব গঠন

মনেকরি, MPM1 একটি উত্তল দর্পন। P মেরূ, F প্রধান ফোকাস এবং C বক্রতার কেন্দ্র । প্রধান অক্ষের উপর PQ ও P1Q1 দুটি লক্ষবস্তু লম্বভাবে অবস্থিত। এর বিম্ব অঙ্কন করতে হবে।

P ও P1 থেকে প্রধান অক্ষের সমান্তরালে আপতিত রশ্মি দুটি দর্পুনে আপতিত হয়ে প্রতিফলনের পর প্রধান ফোকাস থেকে আসছে বলে মনে হয়। P ও P1 বিন্দু থেকে অপর একটি রশ্মি বক্রতার কেন্দ্র ‍দিয়ে প্রতিফলিত হয়। এই প্রতিফলিত রশ্মি গুলোকে পেছনের দিকে বর্ধিত করলে এরা যথাক্রমে I ও I1 বিন্দুতে মিলিত হয়। I ও I1 ‍বিন্দু থেকে প্রধান অক্ষের উপর যথাক্রমে IB ও I1Bলম্ব আঁকা হলো।

তাহলে IB ও I1B1-ই হবে যথাক্রমে PQ ও P1Q1 লক্ষবস্তুর অবাস্তব বিম্ব।

অবস্থান: দর্পনের পেছনে।

প্রকৃতি: অবাস্তব ও সোজা।

আকৃতি: খর্বিত।

শেষ কাথা : এই পাঠে আমি উত্তল দর্পণে প্রতিবিম্ব গঠন সহ বিম্বের অবস্থান, প্রকৃতি ও আকৃতি নির্ণয় কারার সহজ পদ্ধতি ব্যবহার করেছি। আশাকরি, সকলে বুঝতে পারবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top