প্রিজম কাকে বলে ? প্রিজমে আলোর প্রতিসরণ ব্যাখ্যা কর ?

প্রিজম কাকে বলে

প্রিজম কাকে বলে ও প্রিজমে আলোর প্রতিসরণ ব্যাখ্যা করা হলো: প্রিজম কাকে বলে (Prism) দুটি হেলানো সমতল পৃষ্ঠ দ্বারা সীমাবদ্ধ প্রতিসারক মাধ্যমকে প্রিজম বলে। প্রিজমে ছয়টি আয়তক্ষেত্রিক তল । অথবা তিনটি আয়তক্ষেত্রিক ও দুটি ত্রিভুজাকৃতি তল থাকে । যে সমতল পৃষ্ঠদ্বয় পরস্পর আনত থাকে তাদেরকে প্রিজমের প্রতিসারক পৃষ্ঠ বলে। ABB’A’ ও ACC’A’ প্রতিসারক পৃষ্ঠ। প্রতিসারক […]

প্রিজম কাকে বলে ? প্রিজমে আলোর প্রতিসরণ ব্যাখ্যা কর ? Read More »

মরীচিকা কাকে বলে ? মরীচিকা কিভাবে সৃষ্টি হয় ব্যাখ্যা কর ?

উর্ধ্ব মরীচিকা কাকে বলে

মরীচিকা কাকে বলে এবং মরীচিকা কিভাবে সৃষ্টি হয় ব্যাখ্যা করা হলো মরীচিকা কাকে বলে (Mirage): সাধারণত মরু অঞ্চল ও মেরু অঞ্চলে এক ধরনের দৃষ্টিভ্রম দেখা যায় যাকে মরীচিকা (Mirage) বলে। দুই ধরনের মরীচিকা দেখা যায়, যথা- (ক) নিম্ন মরীচিকা ও (খ) উর্ধ্ব মরীচিকা।   নিম্ন মরীচিকা (Inferior mirage) : মরুভূমিতে সূর্যের প্রচন্ড তাপে বালি খুব

মরীচিকা কাকে বলে ? মরীচিকা কিভাবে সৃষ্টি হয় ব্যাখ্যা কর ? Read More »

পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলন কাকে বলে ? বিস্তারিত আলোচনা

পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলন কাকে বলে

পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলন কাকে বলে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো : পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলন কাকে বলে আলোক রশ্মি যখন ঘন মাধ্যম থেকে হাল্কা মাধ্যমে সংকট কোণের চেয়ে বড় মানের কোণে আপতিত হয় তখন প্রতিসরণের পরিবর্তে আলোক রশ্মি সম্পূর্ণরূপে প্রথম মাধ্যমের অভ্যন্তরে প্রতিফলনের সূত্রানুযায়ী প্রতিফলিত হয়। এই ঘটনাকে পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলন বলে।   পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলন সংঘটিত

পূর্ণ অভ্যন্তরীণ প্রতিফলন কাকে বলে ? বিস্তারিত আলোচনা Read More »

ক্রান্তি কোণ বা সংকট কোণ কাকে বলে ? বিস্তারিত তথ্য

ক্রান্তি কোণ বা সংকট কোণ কাকে বলে

ক্রান্তি কোণ বা সংকট কোণ কাকে বলে বিস্তারিত জানার জন্য চিত্রদিয়ে আলোচনা করতে হবে। নিচে চিত্রসহ ক্রান্তি বা সংকট কোণ ব্যাখ্যা করা হলো : ক্রান্তি কোণ বা সংকট কোণ কাকে বলে নির্দিষ্ট রঙের আলোক রশ্মি ঘন মাধ্যম থেকে হাল্কা মাধ্যমে প্রতিসরিত হওয়ার সময় আপতন কোণের যে মানের জন্য প্রতিসরণ কোণের মান সর্বাধিক হয় অর্থাৎ প্রতিসরিত

ক্রান্তি কোণ বা সংকট কোণ কাকে বলে ? বিস্তারিত তথ্য Read More »

স্নেলের সূত্র কী ? এর সাধারণ রূপ ব্যাখ্যা কর ? Snell’s Law

স্নেলের সূত্র Snell's Law

আলোর প্রতিসরণের দ্বিতীয় সূত্রটিকে স্নেলের সূত্র (Snell’s Law) বলা হয়। স্নেলের সূত্র কী Snell’s Law স্নেল 1621 সালে আলোর প্রতিসরণের দ্বিতীয় সূত্রটি আবিষ্কার করেন। তার নামানুসারে এই সূত্রটিকে স্নেলের সূত্র (Snell’s Law) বলা হয়। একে সাইন-এর সূত্রও বলে। স্নেল ছিলেন জার্মানির লিডেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক। আলোর প্রতিসরণের দ্বিতীয় সূত্ৰ: আলো যখন এক স্বচ্ছ মাধ্যম থেকে অন্য স্বচ্ছ

স্নেলের সূত্র কী ? এর সাধারণ রূপ ব্যাখ্যা কর ? Snell’s Law Read More »

আপেক্ষিক প্রতিসরাঙ্ক ও পরম প্রতিসরাঙ্ক কাকে বলে ? আপেক্ষিক প্রতিসরাঙ্ক ও পরম প্রতিসরাঙ্ক এর মধ্যে সম্পর্ক কি?

স্নেলের সূত্র Snell's Law

আপেক্ষিক প্রতিসরাঙ্ক ও পরম প্রতিসরাঙ্ক কাকে বলে ব্যাখ্যা করা হলো: আপেক্ষিক প্রতিসরাঙ্ক (Relative refractive index) প্রতিসরণের দ্বিতীয় সূত্র থেকে দেখা যায়, এক জোড়া নির্দিষ্ট মাধ্যম ও নির্দিষ্ট রঙের আলোর জন্য আপতন কোণের সাইন ও প্রতিসরণ কোণের সাইনের অনুপাত ধ্রুব থাকে। এই ধ্রুব সংখ্যাকেই প্রথম মাধ্যমের সাপেক্ষে দ্বিতীয় মাধ্যমের আপেক্ষিক প্রতিসরাঙ্ক হিসেবে নিম্নোক্তভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়।

আপেক্ষিক প্রতিসরাঙ্ক ও পরম প্রতিসরাঙ্ক কাকে বলে ? আপেক্ষিক প্রতিসরাঙ্ক ও পরম প্রতিসরাঙ্ক এর মধ্যে সম্পর্ক কি? Read More »

আলোর প্রতিসরণ কাকে বলে? আলোর প্রতিসরণের সূত্ৰ গুলি কি কি?

আলোর প্রতিসরণ কাকে বলে

আলোর প্রতিসরণ কাকে বলে এবং আলোর প্রতিসরণের সূত্ৰ গুলো লেখা হলো: আলোর প্রতিসরণ কাকে বলে আলোকরশ্মি এক স্বচ্ছ মাধ্যম থেকে অন্য স্বচ্ছ মাধ্যমে যাওয়ার সময় মাধ্যমদ্বয়ের বিভেদ তলে তির্যকভাবে আপতিত আলোকরশ্মির দিক পরিবর্তন করার ঘটনাকে আলোর প্রতিসরণ বলে।   আলোকরশ্মি বিভেদ তলের যে বিন্দুতে আপতি হয়ে দ্বিতীয় মাধ্যমে প্রবেশ আপতন বিন্দু বলে। আপতন বিন্দুতে বিভেদ

আলোর প্রতিসরণ কাকে বলে? আলোর প্রতিসরণের সূত্ৰ গুলি কি কি? Read More »

আপেক্ষিক আর্দ্রতা কাকে বলে ? আপেক্ষিক আর্দ্রতার সূত্র প্রতিপাদন

আপেক্ষিক আর্দ্রতা কাকে বলে

আপেক্ষিক  আর্দ্রতা কাকে বলে ব্যাখ্যা করা হলো: আপেক্ষিক  আর্দ্রতা কাকে বলে কোন তাপমাত্রায় নির্দিষ্ট আয়তনের বায়ুতে উপস্থিত জলীয় বাষ্পের ভর এবং ঐ একক তাপমাত্রায় আয়তনের বায়ুকে সম্পৃক্ত করতে প্রয়োজনীয় জলীয়বাষ্পের ভরের অনুপাতকে ঐ স্থানের আপেক্ষিক আর্দ্রতা বলা হয়।   আপেক্ষিক আর্দ্রতার সূত্র প্রতিপাদন   কিন্তু নির্দিষ্ট তাপমাত্রার কোনো স্থানের জলীয়বাষ্পের চাপ ঐ স্থানের জলীয় বাষ্পের

আপেক্ষিক আর্দ্রতা কাকে বলে ? আপেক্ষিক আর্দ্রতার সূত্র প্রতিপাদন Read More »

পরম শূন্য তাপমাত্রা বলতে কী বুঝ ?

পরম শূন্য তাপমাত্রা গানিতিকভাবে নির্ণয়

পরম শূন্য তাপমাত্রা গানিতিকভাবে নির্ণয় করা হলো চার্লসের সূত্র: স্থির চাপে নির্দিষ্ট ভরের কোনো গ্যাসের আয়তন প্রতি ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা বৃদ্ধি বা হ্রাসের ফলে 00C অরামাত্রায় তার আয়তনের 1/273 ভাগ হারে যথাক্রমে বৃদ্ধি বা হ্রাস পায়। পরম শূন্য তাপমাত্রা নির্ণয় চার্লসের সূত্রানুসারে পাই, t°C তাপমাত্রায় গ্যাসের আয়তন, Vt = V0 {( 273 +  t)/ 273}

পরম শূন্য তাপমাত্রা বলতে কী বুঝ ? Read More »

চার্লসের সূত্র বিবৃত ও চার্লসের সূত্রের গাণিতিক রূপ প্রতিপাদন

চার্লসের সূত্র বিবৃত

চার্লসের সূত্র বিবৃত ও চার্লসের সূত্র প্রতিপাদন করা হলো 1987 চার্লসের সূত্র বিবৃত ও চার্লসের সূত্র প্রতিপাদন কর?খ্রিঃ চার্লস এবং 1802 খ্রিঃ গেলুস্যাক সতন্ত্র ভাবে তাপমাত্রার সাথে গ্যাসের আয়তনের সম্পর্ক সূত্র আবিষ্কার করেন তাই এ সত্রটিকে চার্লসের সূত্র বা গেলুস্যাক এর সূত্র বলা হয়। সূত্রটি নিম্নরুপ: চার্লসের সূত্র বিবৃত: স্থির চাপে নির্দিষ্ট ভরের কোনো গ্যাসের

চার্লসের সূত্র বিবৃত ও চার্লসের সূত্রের গাণিতিক রূপ প্রতিপাদন Read More »

Scroll to Top